কুলখানির দাওয়াত খেয়ে লাশ হয়ে বাড়ি ফিরলেন বউ-শাশুড়ি

প্রকাশিত: ১০:০৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২১

ধামরাই( ঢাকা) প্রতিনিধি:  ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১

কুলখানির দাওয়াত খেয়ে বাড়ি ফেরা হলো না সাটুরিয়ার বউ-শাশুড়ির। মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের ধামরাইয়ের বাথুলী বাসস্ট্যান্ডে নিয়ন্ত্রণহীন একটি কোচের চাপায় তারা প্রাণ হারান দুইজন।

নিহতরা হলেন- মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলার সাটুরিয়া গ্রামের মো. আব্দুর রশীদের স্ত্রী জাহানারা বেগম (৫৫) ও তার ছেলে শরীফুল ইসলামের স্ত্রী (পুত্রবধূ) মরিয়ম আক্তার পাখী (২০)। এছাড়া গুরুতর আহত আব্দুর রশীদের শিশু নাতি (শরীফুলের ছেলে) মো. আবু বক্কর সিদ্দিক (২) ও বাথুলী গ্রামের বাসিন্দা মো. আব্দুর রহিমকে (৫০) উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) ভর্তি করা হয়েছে।

জানা গেছে, জাহানারা বেগম ও মরিয়ম আক্তার পাখী কুলখানির দাওয়াত খেয়ে নওগাঁও থেকে অটোরিকশাযোগে এসে বাসস্ট্যান্ডে নাম ছিলেন। বেপরোয়া গতির পাটুরিয়াগামী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মহাসড়কের পাশে ফুটওভার ব্রিজে ওঠানামার সিঁড়ির উপরে উঠে গেলে তারা চাপা পড়েন।

এতে ঘটনাস্থলে জাহানারা বেগম ও মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মরিয়ম আক্তার পাখী মৃত্যু হয় । এতে গুরুতর আহত আব্দুর রশীদের শিশু নাতি (শরীফুলের ছেলে) মো. আবু বক্কর সিদ্দিক (২) ও বাথুলী গ্রামের বাসিন্দা মো. আব্দুর রহিমকে (৫০)উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে গোলড়া হাইওয়ে ফাঁড়ি থানার ওসি মো. মনির হোসেন বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় দুইজন মারা গেছেন। আহত দুইজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় রেফার্ড করা হয়েছে। মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। কোচটি জব্দ করা হয়েছে। তবে চালক ও হেলপার পলাতক রয়েছে। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।