জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী পালিত

প্রকাশিত: ১১:২০ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৭, ২০২১

মোঃ মাসুদ রানা: ১৭ মার্চ ২০২১ ইং

আজ ১৭ মার্চ মহা আনন্দের দিনটি বিদায় নিয়ে চলে গেল। সর্ব কালের সর্ব শ্রেষ্ঠ বাঙালি ও মহানায়ক বাংলাদেশের মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম দিন আজ। বিশ্বসহ বাংলাদেশ আজ দূমধামে ও যথাযোগ‍্য মর্যাদায় এ দিনটি মহা আনন্দের সাথে পালন করল। ১৯২০ইং সালের ১৭ মার্চ ত‍ৎকালিন বৃহত্তর ফরিদপুর জেলার গোপালগঞ্জ মহাকুমার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে পিতা শেখ লুৎফর রহমান ও মাতা মোসাম্মৎ সায়েরা খাতুনের ঘর আলোকিত করে জন্ম গ্রহণ করেন শেখ মুজিব নামের আকাশের এক ধ্রব্র উজ্জল নক্ষত্র শিশু। কেউ জানত না এই নক্ষত্র শিশুটিই একদিন বিশ্ব জয় করবে ও জাতির জনক হবে! যার জন্ম নাহলে বিশ্বে মানচিত্রে লাল সবুজের পতাকাসহ বাংলাদেশ নামক একটি রাষ্ট্রের জন্ম আজও হতো না। ২ ভাই ও ৪ বোনের মধ‍্যে তিনি ছিলেনপিতা মাতার তৃতীয় তম সন্তান। হিমালয় পর্ববত না দেখলও আমি তাকে কয়েকবার খুব কাছে থেকেই দেখেছি। তার ব‍্যক্তিত্বতা, সততা, আদর্শতা, সাহসিকতা, দক্ষতা, দূরদর্শীতা, কর্মক্ষমতা, মহনভবতা, বুদ্ধিমত্তা, প্রতিভায়তা ও শ্রেষ্ঠগুণীয়তাসহ অন‍্যান‍্য গুণগুলি ছিল অতি প্রখর ও জগতখ‍্যাত অতুলনীয়। সুতরাং বঙ্গবন্ধু ছিলেন হিমালায় পর্ববত সমতুল‍্য একজন মহামানব। আজ তার ১০১ তম জন্মবার্ষিকী, স্বাধীনতার সবর্ণজয়ন্তী ও শিশু দিবস পালিত হলো। যে সময়ে বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী পালন করা হচ্ছে ঠিক সেই সময়ে তারই আদর্শের বিশ্ব নন্দিত গুণী কন‍্যা আঃলীগ সভাপতি মাননীয়া প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনা হচ্ছেন বাংলাদেশের রাষ্ট্র প্রধান।
এটাও ভাগ‍্যের লিখন। আজ শেখের বেটি হাসিনার নেত‍ৃত্বে দেশ শাসন চলছে। এটা গর্বের ও অহংকারের কথা। আজ বঙ্গবন্ধু বেঁচে নেই বটে কিন্ত তার আদর্শকে ধারন করে তার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ছেন ও স্বল্পোন্নত দেশ হতে উন্নয়নশীল দেশে পরিনত করতে পেরেছেন তারই মানস কন‍্যা। এটা খুবই প্রশংসনীয় কিংবা প্রশংসার দাবীদার। যে সকল গুণাবলী শেখ সাহেবের ছিল সেই সমস্ত গুণগুলিই শেখ হাসিনারও রয়েছে। তাই যেমনি বাপ তেমনি বেটি। সে জন‍্যে এদিনে শেখের বেটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমি সিনিয়র সাংবাদিক মোঃ ইউনুছ আলী ও টিভি চ‍্যানেল ২৪ এর মানিকগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি (স্টাফ রিপোর্টার) আমার পুত্র মোঃ ইউসুফ আলী ও দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার সাটুরিয়া প্রতিনিধি ভাতিজা মোঃ নজরুল ইসলামসহ জানাই স্বশ্রদ্ধেয় সালাম, শতসহস্র ধন‍্যবাদ ও লাখো কোটি অভিনন্দন ও অফুন্ত পুষ্প মাল‍্যের শুভেচ্ছা। সেই সাথে কায়মোনা চিত্রে দু’হাত তুলে দোয়া-আশীর্বাদ করছি মহান সৃষ্টিকর্তা দয়াময় প্রভূ আল্লাহু তা’য়ালা বারেলাহি পরম করুণাময় রহমানের রাহিম তার কুদরতি হাত দিয়ে যেন দরদী শেখ হাসিনাকে নানা আপদ-বিপদ থেকে রক্ষা করেন। আদর্শবান মানুষ শেখ সাহেব যা-যা স্বপ্ন দেখে ছিলেন তারই আদর্শবান বেটি শেখ হাসিনা আজ সবই পূরুন করতে পেরেছেন। দেশের জনগণ আজ হাসিনার প্রতি বেসুমার খুশি ও সন্তোষ্ট প্রকাশ করছে। কিন্ত প্রয়াত শেখ মানুষটি তার মেয়ের রাজত্বকালে মানুষের শান্তিটুকু দেখে যেতে পারলেন না। আমি অদম গোনাগার মানুষ কায়মোনা চিত্রে সেই আদর্শবান দরদী প্রিয় মানুষ মরহুম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিদেহী আত্নার মাখফেরাত কামনা করি। আমি সেই দরদী আদর্শবান বঙ্গবন্ধু নামের মানুষটি ও তার কন‍্যা হাসিনার আদর্শকে বুকে ধারন করে ও অন‍্যান‍্য গুণগুলি লালন-পালন করে তার একজন সৈনিক হয়ে সাদাসিদা ভাবে জীবন-যাপন করছি। তাদের আদর্শতা বাদ দিয়ে ও জ্ঞান-চোখ বন্ধ করে যদি চলতাম তবে জীবনে অনেক কিছু করতে পারতাম। সে সুযোগ জীবনে বহুবার হাত ছানি দিয়ে ডেকে ছিল, কিংবা এখনো ডাকছে। কিন্ত না সে আদর্শতা বদলায়ে সে সুযোগ গ্রহণ করতে পারি না। সুম্মা আমিন। ওয়া আখেরো দাওয়ানা ওয়াল হামদু লিল্লাহি ওয়া রাব্বুল আলামিন।