হিন্দু ধর্ম ছেড়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী

প্রকাশিত: ৭:৩৭ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২০, ২০২১

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী  হিন্দু ধর্ম ছেড়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন।তার গ্রামের বাড়ি মা‌নিকগ‌ঞ্জের সাটু‌রিয়া উপ‌জেলার  সদর ইউ‌নিয়‌নের পালপাড়া গ্রা‌মে অনুপম কুমার পাল।
সরকারি এক হলফনামায় স্বাক্ষর করে অনুপম কুমার পাল এ ঘোষণা দিয়েছে। ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে তার নতুন নাম নিয়েছেন মুজতাবা রাহমান তাহমিদ।

আগে তার নাম অনুপম কুমার পাল থাক‌লেও ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে সে নাম নিয়েছেন মুজতাবা রাহমান তাহমিদ। তিনি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ও বিচার বিভাগের ৪২ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী।

হিন্দু ধর্ম ছেড়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার বিষয়‌টি অনুপম কুমার পাল নি‌জে আজ ২০ এ‌প্রিল মঙ্গলবার সকা‌লে নি‌শ্চিত ক‌রে‌ জানায়, ২০১৯ সা‌লে সরকারি হলফনামায় স্বাক্ষর করে হিন্দু ধর্ম ছেড়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ কর‌লেও বিষয় অ‌নেকটা গোপন ক‌রে রাখা হ‌য়ে‌ছিল। গত ১৮ এ‌প্রিল ২০২১ র‌বিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তার বিশ্ব‌বিদ‌্যাল‌য়ের এক‌টি গ্রু‌পে তার ইসলাম ধর্ম গ্রহণের বিষয়ে জা‌নি‌য়ে এক‌টি পোস্ট দি‌লে তা ব‌্যাপক ভা‌বে জানাজা‌নি হ‌য়ে যায়।

মুজতাবা রাহমান তাহমিদ তার সকল শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্রে নাম পরিবর্তনের জন্য জাতীয় পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়েছেন।
হলফনামায় অনুপম কুমার পাল উল্লেখ করেন, আমি স্বেচ্ছায়, স্বজ্ঞানে, সুস্থ মস্তিষ্কে অন্যের বিনা প্ররোচণায় ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছি। ইসলামের সকল নিয়ম কানুন জেনে বুঝে এক মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন, তার পবিত্র ধর্মগ্রন্থ আল কোরআন এবং তার প্রেরিত রাসুল হযরত মুহাম্মদ (স.) এর ওপর বিশ্বাস স্থাপন করেছি। আমি ইসলামের সকল বিধিবিধান পালন করছি।
হলফনামায় নাম পরিবর্তনের বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি বলেন, অনুপ কুমার পাল এর পরিবর্তে এখন থেকে মুজতবা রাহমান তাহমিদ সংশোধন করে নেব এবং এ নামেই এখন থেকে সব জায়গায় পরিচিত হব।
ইসলাম ধর্ম গ্রহণের বিষয়ে তার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের গ্রু‌পে ১৮ এ‌প্রিল তিনি লিখেন, সকল প্রশংসা মহান স্রষ্টার যিনি আমাকে এই সত্য উপলব্ধি করিয়েছেন। সবার ভাগ্যে এই সত্যের সন্ধান জোটে না, তাই নিজেকে ভাগ্যবান মনে করি। ২০০৯ সাল থেকে ইসলামের উপর বিশ্বাসের শুরু। এই বিশ্বাসের পেছনে পৃথিবীর কেউ বা কোন কিছু দায়ী না। কেউ আমাকে ওরকম ভাবে ইসলামের দাওয়াত দেয়নি। স্রষ্টার কৃপায় নিজের বুদ্ধি, বিবেক দিয়ে পড়ে, জেনে, বুঝেই এগিয়েছি। পথে অনেক বাধাবিপত্তি ছিল। আল্লাহর সাহায্যে একটার পর একটা পাড়ি দিয়েছি, আলহামদুলিল্লাহ।